Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কী সেবা কীভাবে পাবেন

০৪. নারী উন্নয়নের জন্য বাসত্মবায়নাধীন সেবাসমূহ:

ক. ভিজিডি(ভালনারআবেল গ্রুপ ডেভেলপমেন্ট) কর্মসূচী : খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য সারা বাংলাদেশে ৭৫০,০০০ জন নারীকে প্রতি মাসে ৩০কেজি হারে খাদ্যশস (চাল/গম) খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। ভিজিডি ২০১৩-২০১৪ চক্রের আওতায় বরিশাল জেলায় সদর উপজেলার ১০টি ইউনিয়নে ২৫৯৪ জন মহিলাকে সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। প্রতি দুই বছর অমত্মর একএক চক্রের কার্যক্রম সমাপ্ত করে নতুনচক্র শুরু করা হয়। খাদ্য খাদ্য সহায়তার পাশাপাশি প্রত্যেক মহিলাকে আত্মকর্মসংস্থানের লক্ষ জীবনদক্ষতা উন্নয়ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের এ কার্যক্রম অব্যহতভাবে চলছে। ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে এ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। ২০১৩-২০১৪ চক্রে বরিশাল জেলার ১০টি উপজেলায় ভিজিডি  উপকারভোগীর সংখ্যা ২২৭৮৯ জন।

 

খ. দরিদ্র মা’র মাতৃত্বকালভাতা কার্যক্রম : বরিশাল জেলার ১০টি উপজেলায় ১৭৮৫জন নারীকে তার শিশুর পুষ্টি বৃদ্ধির জন্য ২৪ মাস পর্যন্ত মাসিক ৩৫০ টাকা হারে ভাতা প্রদান করা হয়। এ সকল উপকারভোগীকে আর্থিক সুবিধার পাশাপাশি শিশুর পুষ্টিগুন বিষয়ে ও তার নিজের দেহ সু-রক্ষর জন্য সচেতনতামূলক প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। এ কার্যক্রম ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে বাস্তবায়ন কর হচ্ছে। বরিশাল সদর উপজেলায় ২১০ জন নারীকে ২০১২-২০১৩ চক্রে এ কার্যক্রমের আওতায় আনা হয়েছে।

 

গ. কর্মজীবী ল্যাকটেটিং মাদার সহায়তা তহবিল কর্মসূচী : প্রথম পর্যায় জুলাই ২০১০ থেকে জুন ২০১২চক্রে বরিশাল সিটি কর্পোরেশনে ১১০০জন দুগ্ধদায়ী মাকে প্রতি মাসে ৩৫০ টাকা হারে ভাতা প্রদান করা হয়েছে। মা ও শিশুর স্বাস্থ্য সুরক্ষর জন্য এ ভাতা প্রদান কর হয়। জুলাই ২০১২ হতে জুন ২০১৪ পর্যন্ত ২৪মাস চক্রে বরিশাল সিটি কর্পোরেশনে দ্বিতীয় পর্যায় ১১০০ দুগ্ধদায়ী কর্মজীবী মা'কে এ সুবিধার আ্ওতায় আনা হয়েছে, আর্থিক সুবিধার পাশাপাশি মা ও শিশু স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়ে সচেতনতামূলক প্রশিক্ষণ দেয় হচ্ছে।

 

ঘ. ঝুঁকিপূর্ন ও সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের আর্থিক সুবিধা প্রদান কর্মসূচী  : বরিশাল সিটি কর্পোরেশনে প্রথম পর্যায় জুলাই,২০১২থেকে ৩০০জন শিশুকে বাছাই করে প্রতি মাসে ২০০০টাকা হারে ১৮মাস পর্যন্ত আর্থিক সুবিধা প্রদান করার কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। ২০১৭ সাল পর্যন্ত এ কার্যক্রম চলবে।

 

ঙ. ডাব্লিউটিসি (মহিলা প্রশিক্ষণ কেন্দ্র) : মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর, বরিশাল এ ৫টি ট্টেডে তিন মাস করে (আধুনিক দর্জি বিজ্ঞান ও এমব্রয়ডারী,প্যাকেজিং,মোমবাতি তৈরি, নার্সারী ও কিচেন গার্ডেনিং, মোবাইল সাভিসিং) ১৬-৪৬ বছর বয়সী অ-সহায়,দু:স্থ নারীদের বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। প্রতি কর্ম দিবসে বৃত্তির পরিমান ৫০টাকা ।

 

চ. স্বেচ্ছাসেবী মহিলা সংগঠন : মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মাধ্যমে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের নিবন্ধন দেয়া হয়। এ সংগঠনের মাধ্যমে নারীরা আয়বর্ধক কর্মসূচী, সমাজসেবামূলক কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত হয়ে নারী নেতৃত্বের পথ সুগম করে দেশগঠনমূলক কার্যক্রমে অংশগ্রহন করতে পারে। বরিশাল জেলার ১০টি উপজেলায় এ ধরনের নিবন্ধিত সংগঠনের সংখ্যা ৪৪৩টি।  বাংলাদেশ মহিলা কল্যান পরিষদ থেকে প্রতি বছর কিছু কিছু সংগঠন কে উন্নয়নমূলক কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য এককালীন অনুদান দেয়া হয়। গত ২০১১-২০১২ অর্থ বছরে বরিশালে ৫৮টি সংগঠনের অনুকুলে এককালীন বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ১২,৮১,০০০টাকা।

 

ছ. ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম : মহিলাদের আত্নকর্মসংস্থানের জন্য ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম চলমান আছে, বরিশাল সদর উপজেলায় এ যাবত  ২৯৩ জন মহিলাকে ২৪,৮৫,০০০টাকা ক্ষুদ্রঋণ বিতরণ করা হয়েছে। সরকারী বরাদ্দের পরিমান ১২,৮০,০০০। .বর্তমানে ঘুনায়মাণ বিতরণকৃত ঋণের পরিমান ২৪,৮৫,০০০টাকা।

 

জ. শিশু দিবাযত্ন কেন্দ্র : মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর, বরিশাল এ একটি  ডে-কেয়ার সেন্টার আছে। ৬০টি শিশুর লালন পালন,শিক্ষা ও চিত্তবিনোদনসহ সকাল ও দুপুরে পুষ্টিকর খাবারের সু-ব্যবস্থা আছে। বর্তমান সেন্টারে ৪৫টি শিশুকে এ সেবা দেয়া হচ্ছে।

 

ঝ. মহিলা সহায়তা কর্মসূচী : স্বামী পরিত্যাক্ত,নির্যাতিত,অসহায় নারীদের আশ্রায়দান,আইনী সহায়তা প্রদানসহ মৌলিক চাহিদার সুবিধা প্রদানে সহায়তা দেয়া হয়।